সানগ্লাস কি শুধুই ফ্যাশন নাকি চোখের সুরক্ষা ও

আপনি সানগ্লাস কেন পরবেন?

২০১২ সালে চালানো এক জরিপ অনুযায়ী, প্রায় ৯০ শতাংশ মানুষ মনে করেন যে চোখের সুরক্ষা সার্বিক সুস্বাস্থ্যতার অন্যতম অংশ। চোখজোড়াকে নিরাপদ রাখতে সানগ্লাস অন্যতম ভূমিকা পালন করে। কিন্তু অধিকাংশ মানুষ সানগ্লাস ব্যবহার করেন শুধু সূর্যের আলোর মাত্রা কমাতে। আসলে সানগ্লাস ব্যবহারের পিছনে আরো অনেক কারণ রয়েছে যেমন বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে প্রাকৃতিক ও পারিপার্শ্বিক সৌন্দর্য্যতাকে পুরোদমে উপভোগ করা। আজকে এ ব্যাপারেই আপনাদেরকে বিস্তারিত জানাবো।

সূর্য সম্পর্কিত স্বাস্থ্য সমস্যার প্রতিকার

আমাদের চক্ষুজোড়া অত্যন্ত সংবেদনশীল। দীর্ঘসময় সূর্যের আলোতে চক্ষুজোড়া উন্মুক্ত থাকলে চোখের নানারকম সমস্যা হবার আশংকা তৈরি হয়। সামান্য ব্যথা বা যন্ত্রণা থেকে শুরু করে মারাত্মক পর্যায়ের রোগও হতে পারে।

১) চোখের পাতাসহ এর চারপাশের যে ত্বক রয়েছে তা সূর্যরশ্মির প্রতি অত্যন্ত সংবেদনশীল। ত্বকের-ক্যান্সারের মধ্যে প্রায় ১০% পাওয়া যায় চোখের চারপাশে। আলট্রাভায়োলেট হতে রক্ষাকারী চারপাশে মোড়ানো বড় লেন্সের সানগ্লাসগুলো শুধু আপনার চোখ জোড়াকেই না বরং ত্বককে প্রতিরক্ষা প্রদান করবে।

২) চোখের ছানি পড়া বা ছানির মত জটিল অবস্থার সৃষ্টি হবার বিষয়টির সাথে আমরা সকলেই পরিচিত। চোখের লেন্সের চারপাশের মেঘাচ্ছন্ন ধরণের অংশকে বলা হয় “ক্যাটারাক্টস”। গ্লৌকোমা রিসার্চ ফাউন্ডেশনের মতে, দীর্ঘদিন ও দীর্ঘসময় ধরে যদি সূর্যের আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মিতে আপনার চোখজোড়া উন্মুক্ত থাকে তবে তা ছানি জাতীয় সমস্যাকে আরো জটিলতর করে তোলে যা এক পর্যায়ে অন্ধত্ব তৈরি করতে পারে। আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি হতে সম্পূর্ণরূপে প্রতিরক্ষাকারী সানগ্লাসগুলো এই ছানি এর আশংকা উল্লেখযোগ্যহারে কমিয়ে দেয়।

৩) ম্যাকুলার ডিজেনারেশন এমন এক ধরণের অবস্থা যা আপনার চোখের রেটিনার একটি অংশ ম্যাকুলাকে ধীরে ধীরে ক্ষয় করে ফেলে এবং ধীরে ধীরে অন্ধত্বের সৃষ্টি করে। এক ধরণের আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি এর জন্য দায়ী, সুতরাং সানগ্লাস পরিধান এই সমস্যা থেকে আপনাকে মুক্তি দিবে।

৪) টেরিজিয়াম নামক এক ধরণের যন্ত্রণাদায়ক বা বিরক্তিকর সমস্যা দেখা যায় যার সাধারণ চিকিৎসা হিসেবে চোখের ড্রপ, স্টেরয়েড এবং সার্জারি (খুবই নগণ্য) করা হয়। কিন্তু এতো ঝামেলায় না যেয়ে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী, চারপাশে মোড়ানো আল্ট্রাভায়লেট রশ্মি প্রতিরক্ষাকারী সানগ্লাস ব্যবহার করলেই আরামে জীবন কাটাতে পারবেন।

প্রাকৃতিক উপাদান থেকে সুরক্ষা

শুধু সূর্যই যে আপনার চোখের জন্য ক্ষতিকর কারণ হতে পারে তা নয়, যারা দীর্ঘসময় বাইরে থাকেন তাদের জন্য ধূলাবালি, বাতাস এমনকি তুষারও আলাদাভাবে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

১) চোখে বালি যাওয়া যেমন যন্ত্রণাদায়ক তেমনি ক্ষতিকর। ছোট বালুকণাও চোখে এমন চুলকানি ও যন্ত্রণার সৃষ্টি করে যা চিরতরে চোখের ক্ষতি করতে পারে। সানগ্লাস ব্যবহার করে চোখকে সেসব বালি থেকে প্রতিরক্ষা করুন।

২) যারা ধূলা-বাতাসময় পরিবেশে অনেক সময় অতিবাহিত করেন তারা জানেন এসব চোখের জন্য কতটা বিরক্তিকর। এমন পরিবেশেও সানগ্লাস পারে আপনার চোখজোড়াকে সুরক্ষা দিতে।

৩) জেনে অবাক হবেন যে তুষারও চোখের ক্ষতি করতে পারে। সূর্যের শতকার ৮০ ভাগ আলট্রাভায়োলেট রশ্মি তুষারে প্রতিফলত হয় যা চোখের কর্ণিয়াইয় জ্বালাপোড়ার সৃষ্টি করে। এমন জায়গা কখনো ঘুরতে গেলে অবশ্যই হাতের নাগালে সানগ্লাস রাখবেন এবং আপনার প্রিয় মানুষগুলোকেও উৎসাহিত করবেন সানগ্লাস ব্যবহারের ব্যাপারে।

চোখের অবস্থার উন্নতি

চোখের সার্জারি বা কোন চিকিৎসার পর ডাক্তাররা সাধারণত সানগ্লাস পরে থাকতে বলেন যেন বাহ্যিকভাবে কোনকিছু চোখের উপর সরাসরি কোন প্রভাব ফেলতে না পারে। এতে সার্জারি পরবর্তী অবস্থার দ্রুত উন্নতি হবার সম্ভাবনা থাকে।

প্রকৃতি উপভোগ

চোখকে শুধু সুরক্ষার জন্য নয় বরঞ্চ দূরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যকে উপভোগ করতেও সানগ্লাস কাজে দেয়। পোলারাইজড লেন্সের সানগ্লাস পরিধানের মাধ্যমে আপনি পাহাড়-পর্বত বা দূরের প্রাকৃতিক নৈসর্গ্যকে পরিষ্কারভাবে দেখতে পারবেন।

নিরাপদে গাড়ি চালানো

দিনের ঝড়-বৃষ্টির সময় গাড়ি চালানো কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ, কারণ আলো-ছায়ার খেলা আপনাকে বিভ্রান্ত করতে পারে। নির্দিষ্ট শ্রেণীর লেন্সের সানগ্লাস এই আলো-ছায়ার মধ্যে এক ধরণের সামাঞ্জস্যতা তৈরি করে। এতে আপনি রাস্তাঘাট বা সামনের যেকোন কিছু পরিষ্কার দেখতে পাবেন।

শুধু ফ্যাশনের জন্য না, মূল্যবান চোখজোড়াকে নিরাপদ রাখতে দিনে বাইরে বের হওয়ার সময় সানগ্লাস সবসময় সাথে রাখুন। সুস্থ্য ও সুন্দর থাকুন।

ভালো মানের সানগ্লাস যেমন চোখের জন্য প্রয়োজনীয় তেমনি নিম্নমানের সানগ্লাস হতে পারে চোখের বিপদের কারন। তাই সর্বদা ভালো মানের সানগ্লাস ব্যবহারের চেষ্টা করুন ।

সানগ্লাস কিনতে ক্লিক করুন এই লিঙ্কেঃ https://alittlebitofsazi.com/product-category/fashion-product/

2 thoughts on “সানগ্লাস কি শুধুই ফ্যাশন নাকি চোখের সুরক্ষা ও”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *